চাঁদপুরে বিশ্ব খাদ্য দিবসের আলোচনা

চাঁদপুরে বিশ্ব খাদ্য দিবসের আলোচনা

স্টাফ রিপোর্টার :

আজ বিশ্ব খাদ্য দিবস ১৬ অক্টোবর। জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য দিবস সংস্থার সাথে মিল রেখে এ বছরের প্রতিপাদ্য নির্বাচন করা হয়েছে। ‘ সবাইকে নিয়ে একসাথে বিকশিত হোন, শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন, আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যৎ ’- এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে আমাদের দেশের খাদ্য বিভাগ এবারের বিশ্ব খাদ্য দিবস পালন করছে ।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা গণভবন থেকে সকাল ১১ টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিশ্ব খাদ্য দিবসের উদ্বোধন করবেন। চাঁদপুর জেলা প্রশাসন, চাঁদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রণ বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত চাঁদপুরে এবারের বিশ্ব খাদ্য দিবস পালনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে ।

এর পর চাঁদপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষের আলোচনা সভায় এতে সভাপতিত্ব করবেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থাকবেন কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মো.আব্দুর রশীদ ও চাঁদপুরের খাদ্য বিভাগের খাদ্য নিয়ন্ত্রক নিত্যানন্দ কুন্ডু , চাঁদপুর প্রাণী সম্পদ বিভাগীয় ও কৃষি , খাদ্য বিভাগীয় কর্মকর্তাগণ।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতই এবার বাংলাদেশে বিশ্ব খাদ্য দিবস পালিত হবে । জাতীয়,আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পর্যায়ে বিশ্ব খাদ্য দিবস প্রতি বছর পালিত হয়ে থাকে।

হাঙ্গেরীর বিজ্ঞানী ড.পল রোমানী জাতিসংঘে ১৯৭৯ সালে সর্বপ্রথম বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার সাধারণ সভায় খাদ্য দিবস পালনের প্রস্তাব করেন । তারপর ১৯৮১ সাল থেকে প্রতিবছর খাদ্য ও কৃষি সংস্থার জন্মদিন উপলক্ষে ‘ ১৬ অক্টোবর ’ বিশ্বব্যাপি পালিত হচ্ছে বিশ্ব খাদ্য দিবস।

বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার মতে , বর্তমানে পৃথিবীর খাদ্য নিরাপত্তার অন্যত্তম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন। ফলে সৃষ্ট জালবায়ূর বিরূপ প্রতিক্রিয়া ,খরা ,ঘূর্ণিঝড়,জলোচ্ছ্বাস , সাইক্লোন , বন্যা ও করোনার মত বৈর্শ্বিক মহামারী প্রভৃতি আমাদের দেশসহ পৃথিবীর অনেক দেশের খাদ্য নিরাপত্তা এবার হুমকির মুখে রয়েছে।
এক তথ্যে জানা যায়- পৃথিবীর ১০ থেকে ৩৫ মিলিয়ন হেক্টর জমি বিভিন্ন কারণে হ্রাস, বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দাভাব, জ্বালানি তেলের মূল্য দফায় দফায় বৃদ্ধি , একদেশ অন্যদেশের প্রতি যুদ্ধের মুখোমুখি পরিস্থিতি ও এবারে করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্বব্যাপি খাদ্য নিরাপত্তাকে আরো ঝুঁকিতে ফেলে দিচ্ছে।

শিল্পকারখানা স্থাপন, নগরায়ন,নতুন নতুন রাস্তা ঘাট ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ, নতুন ইটের তৈরি আবাসভূমি নির্মাণ বা পরিধি বৃদ্ধি ইত্যাদি কারণে আবাদি জমি কমে যাচ্ছে। অর্থনীতিতে মন্দাভাব বিরাজ করায়ও প্রতিনিয়ত বিশ্বব্যাপি খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছে । এক জরিপের তথ্যে জানা যায়-বিশ্বের প্রায় ১শ কোটির বেশি মানুষ খাদ্য নিরাপত্তা নেই। তারা দিন কাটায় অর্ধাহারে-অনাহারে। তাছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে মানুষকে আতংকিত করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536